বিস্তারিত

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিৃশু-কিশোর, তরুণরা ঝুঁকছে মোবাইল গেমসে

আপডেট টাইম : 1 week ago
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিশু-কিশোর, তরুণরা ঝুঁকছে মোবাইল গেমসে

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মহামারী করোনা প্রাদুর্ভাবে দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায়  শিশু-কিশোর, তরুণসহ  শিক্ষার্থীরা ঝুঁকছে মোবাইল গেমসে। বর্তমান ডিজিটাল যুগে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের হাতে কতইনা নামীদামী এন্ড্রয়েড ফোন। 

 

অনেক শিক্ষার্থী ঘরে বসেও যুক্ত থাকে বন্ধু বান্ধবদের সাথে ভার্চুয়ালী আড্ডায়। আধুনিক তথ্য প্রযুক্তির যুগে করোনা পরিস্থিতিতে প্রতিষ্ঠানের পক্ষে শিক্ষার্থীরা ইতিবাচক মানসিকতায় অনলাইন ক্লাসে যুক্ত থাকতেও দেখা যায়।

 

তবে অধিকাংশ শিক্ষার্থীরা এসব থেকে বেরিয়ে আসক্ত হয়ে পড়েছেন নানার মোবাইল গেমসে। শতকরা ৪০ ভাগ শিক্ষার্থীরা বর্তমান সময়ে মোবাইলের সাহায্যে ফ্রী গেমস নিয়ে ব্যস্ত।

 

জানা যায়, বিগত বছরের মার্চ-এপ্রিলের দিকে  দেশের শিক্ষা প্রতিষ্টান বন্ধ ঘোষণার পর থেকে অধিকাংশ শিক্ষার্থী ভার্চুয়াল ক্লাসের পাশাপাশি বন্ধুদের সঙ্গে যুক্ত হচ্ছেন মোবাইল ভিত্তিক বিভিন্ন গেমসে। বর্তমানে যা রীতিমতো তাদের আসক্তিতে পরিণত হয়েছে।

 

আপাতত বই খাতা দূরে রেখে বেশিরভাগ সময় ব্যয় করে যাচ্ছে গেমসে। কখনো নিরিবিলি পরিবেশ বা নানান অজুহাতে ঘর থেকে বেরিয়ে ফাঁকা স্থান না হয় শান্ত পরিবেশে তারা দলবেঁধে মেতে উঠেছে মোবাইলে মজার মজার গেমসে। 

 

কাউছার রুমি নামের এক শিক্ষার্থী জানান, লেখাপড়ার পাশাপাশি পরিবার বা আত্বীয় স্বজন কিংবা নিজের মোবাইল নিয়ে বিকেলে অবসরে গেমসের মাধ্যমে হালকা বিনোদন নেয়ার চেষ্টা করি। অশ্লীল বা অসামাজিক নয়। আবার অনেক বন্ধুরা মিলে অনলাইনে বিভিন্ন গ্রুপ খুলে নানা শিক্ষা প্রতিষ্টানের সহপাঠিদের সাথে এক হয়ে ভাল কিছু করার চেষ্টাও চালায়।

 

সচেতন লোকজন জানান, তথ্য প্রযৃক্তির ডিজিটাল এ যুগে  বর্তমান সময়ে শিক্ষার্থীরা কতইনা নামীদামী ব্রান্ডের মোবাইল চালায়। বন্ধ থাকা শিক্ষাঙ্গনের অধিকাংশ শিক্ষার্থীরা গেমসে আসক্ত। এসব বিষয়ে পরিবারের কর্তাদের সচেতন হওয়া অতিব জরুরী বটে।

 

সচেতন নাগরিকদের সঙ্গে কথা হলে তারা জানান, বর্তমান সময়ে তথ্য প্রযৃক্তির ডিজিটাল এ যুগে শিক্ষার্থীরা মাঠে ক্রিকেট, ফুটবল না খেলে তারা ঝুঁকে পরছে মোবাইল গেমসের দিকে। যার ফলে যুব সমাজ এখণ হুমকির মুখে। এই গেমসের পিছনে তাদের ঘন্টার পর ঘন্টা নষ্ট হচ্ছে। অনেকে আবার এই গেসমের মধ্যে টাকাও খরচ করছে। যেখানে যুবকদের মাঠে ঘাটে বল নিয়ে খেলার কথা বা লেখাপড়ার প্রতি মনোযগী কথা কিন্তু তারা এখণ সারাদিন বসে থাকে মোবাইল নিয়ে। এটা খুবই দু:খ ব্যাপার।

 

বিডি প্রভাত/আরএইচ

নিউজটি শেয়ার করুন

খবর সম্পর্কিত ট্যাগ..

বিডি প্রভাত
মন্তব্য দিন
We'll never share your email with anyone else.