মান্দার কৃষি জমির মাটি যেন ইটভাটা মালিকদের দখলে

মান্দার কৃষি জমির মাটি যেন ইটভাটা মালিকদের দখলে

রায়হান আলী, মান্দা: উত্তর বঙ্গের শস্য ভান্ডার নামে খ্যাত নওগাঁর মান্দা উপজেলার কৃষি মাটি দখল করে নিয়েছে ইট ভাটা মালিকরা। নির্বিচারে কেটে নিচ্ছে ৩ ফসলি কৃষি জমির টপসয়েল। যেন দেখার কেউ নেই।
একদিকে কৃষি জমির মাটি কর্তন ও অন্যদিকে পুকুর খননের হিড়িক।

মাটি ব্যবসায়ী ও দালালদের দৌরাত্বে প্রতিনিয়ত কৃষি জমির টপসয়েল যাচ্ছে ইট ভাটায়। এতে করে জমির উর্বরতা শক্তি হারিয়ে ফসল উৎপাদন শক্তি হ্রাস পাচ্ছে।

এতে করে জমির পরিমাণ ও উৎপাদন আশংকাজনকহারে কমছে। ভূমি আইনকে তোয়াক্কা না করে মাটি কেটে নিয়ে যাচ্ছে ইট ভাটায়। মাটি বহনকারী ট্রাক্টরে নষ্ট হচ্ছে গ্রামীণ জনপদের রাস্তাঘাট।

অন্যদিকে ট্রাক্টরের শব্দ ও ধুলায় দূষিত হচ্ছে পরিবেশ। এতে করে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন এলাকার লোকজন। মাটিবাহী ট্রাক্টর যেন দখল করে নিয়েছে মান্দার জনপদ ও রাজশাহী-নওগাঁ মহাসড়ক। মহাসড়কে শত শত ট্রাক্টর মাটি বহন করে নিয়ে যাওয়ার সময় পাকা রাস্তার উপর ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ছে নরম মাটি। এতে করে বিন্ঘিত হচ্ছে ছোট-বড় যান চলাচল এবং সেই সাথে বৃদ্ধি পেয়েছে সড়ক দূর্ঘটনা।

চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন পথচারীরা। মহাসড়কের পাশে গড়ে উঠেছে ইট ভাটা। আর এই মহাসড়কে ট্রাক্টর চালকরা গাড়ি দাড়িয়ে মাটি লোড-আনলোড করছে। এতে যে কোন সময় দূর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে স্থানীয়রা মনে করছেন।

স্থানীয় বিজ্ঞজনরা বলেন, ভূমি রক্ষায় যথাযথ আইন প্রয়োগ না হওয়ায় প্রতিনিয়ত কৃষি জমি ও পকুর খনন বেড়ে চলেছে। মাঝে মাঝে দু-একটি ভ্রাম্যমান আদালতে জেল-জরিমানা করলেও বন্ধ হচ্ছে না মাটি কর্তন ও পুকুর খনন।

জেল জরিমানার কয়েকদিন পরে আবারোও সেখানে নির্বিন্ঘে পূর্বের ন্যায় চলে কাজ। এতে করে বিজ্ঞজনরা মনে করছেন, এটা শুধু মাত্র দায় সারা ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা।

বিডি প্রভাত/এফএবি

Spread the love