মানিকগঞ্জে ভিপি মিরু হত্যা মামলার ৩ আসামি গ্রেফতার

মানিকগঞ্জে ভিপি মিরু হত্যা মামলার ৩ আসামি গ্রেফতার

মো.হারিজ উদ্দিন শিপু, মানিকগঞ্জ: সিংগাইর কলেজের ভিপি ফারুক হোসেন মিরু হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত তিন আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বুধবার দুপুরে নিহত কলেজছাত্র মিরুর বড়ভাই রেজাউল করিম হিরু বাদী হয়ে সিংগাইর থানায় ১২ জনকে আসামি করে মামলা করেন। থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রকিবুজ্জামানকে এ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে সিংগাইর থানা পুলিশ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে মিরু হত্যাকাণ্ডে জড়িত তিনজনকে গ্রেফতার করে।

গ্রেফতাররা হলেন- পৌর এলাকার আজিমপুরের আবদুর রাজ্জাক মোল্লা ওরফে ধনার ছেলে ইমরান মোল্লা, তার ভাই সোহান মোল্লা ও অটোরিকশা চালক উপজেলার নয়াডাঙ্গি গ্রামের শামসুলের ছেলে ইমান আলী। গ্রেফতারদের কাছ থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত দুটি অটোরিকশা, একটি মোটরসাইকেল, রক্তাক্ত ছেনি/পাইপ ও জামাকাপড় উদ্ধার করা হয়। অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জের ধরে সোমবার রাতে মিরুকে কুপিয়ে আহত করা হয়।

মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকার জাতীয় অর্থোপেডিকস (পঙ্গু) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। উপজেলা পরিবহণ শ্রমিক লীগ সাধারণ সম্পাদক জালাল উদ্দিন ওরফে আঙ্গুর ও ছোটভাই দুলালসহ ৫-৭ জন কুপিয়ে হত্যা করে বলে অভিযোগ উঠেছে। আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুলাল ও তার সহযোগীরা মিরুকে মারধর করেন। এ নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়।

সোমবার রাতে সংসদ সদস্য মমতাজ বেগমের বাড়িতে গান শেষে মোটরসাইকেলে উপজেলা সদর আঙ্গারিয়া মহল্লায় ভাড়া বাড়িতে ফিরছিলেন ভিপি মিরু। রাত ১টার দিকে সিংগাইর পুরাতন বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছলে দুলাল ও তার ভাই জালাল মোটরসাইকেল গতিরোধ করেন। এরপর তারা মিরুকে চাইনিজ কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। মিরুকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হয়। পরে রাতেই তাকে ঢাকার জাতীয় অর্থোপেডিকস (পঙ্গু) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার দুপুরে তিনি মারা যান। রাত ১১টায় সিংগাইর পৌরসভার আজিমপুরে কেন্দ্রীয় কবরস্থানে তার লাশ দাফন করা হয়।

সহকারী পুলিশ সুপার (সিংগাইর সার্কেল) মো. রেজাউল হক জানান, এ খুনের ঘটনায় তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকিদের গ্রেফতারে জোর চেষ্টা চলছে।

বিডি প্রভাত/জেইচ