মাতারবাড়ীতে (ACF) এনজিওতে কর্মরত ৯ রোহিঙ্গা যুবক আটক

মাতারবাড়ীতে (ACF) এনজিওতে কর্মরত ৯ রোহিঙ্গা যুবক আটক

সরওয়ার কামাল, কক্সবাজার প্রতিনিধিঃ মহেশখালী উপজেলার মাতারবাড়ীতে এসিএফ (ACF) এনজিও অধীনে আলী কনস্ট্রাকশন নামের এক ঠিকাদারী প্রতিষ্টানে কাজ করার সময় ৯ রোহিঙ্গাকে স্থানীয় গ্রাম পুলিশের সহয়তায় আটক করেছে মাতারবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাস্টার মোহাম্মদ উল্লাহ।

১৩ই ফেব্রুয়ারি (শনিবার) বিকালে মাতারবাড়ী নতুন বাজার ও বাংলাবাজার এলাকা থেকে তাদেরকে আটক করে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে আসা হয়।

আটককৃতরা হলেন, নজিম উল্লাহ(২৩) পিতা হামিদ হোসেন, বালু খালী ক্যাম্প ৮ই , লাল মোহাম্মদ (২৭)পিতা আবুল হোসেন, বালুখালী ৮ই, নুর আলম(৩০) পিতা আনোয়ার, বালুখালী ৯ এফ টু, এশাদুল্লাহ (২৮) পিতা আব্দুল করিম ক্যাম্প ৯, বালুখালী, কেফায়েত উল্লাহ(৩০) পিতা আব্দুল আমিন, ক্যাম্প ৩ জি ১৬ কুতুপালন, খায়রুল আমিন(২৫) পিতা খালামিয়া, বালুখালী ৯ এফ ২, জিয়াবুল হোসেন(১৬) পিতা, লালু মিয়া, জফুর উল্লাহ(২১)হামিদ হোসেন,হামিদ হোসেন(৫৫) পিতা অলী বকসু, এইচ বল্ক।

অনুসন্ধানে জানা যায়, আর্ন্তজাতিক এনজিও সংস্থা এসিএফ (ACF) এর,ওয়াশ প্রজেক্টে প্রায় দুই মাস ধরে কাজ গোপনে চালিয়ে যাচ্ছে।

এদিকে মেসার্স আলী কনস্ট্রাকশন এর মোহাম্মদ আলী জানান, এসিএফ এর ম্যানেজার লজষ্টিক দিদারুল ইসলাম রাকিবুল আরেফিন সহ কয়েকজনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা কিছু জানেন না বলে একজন আরেকজনকে দোষারোপ করে দায় এড়াতে থাকেন।

এবিষয়ে মাতারবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাষ্টার মোহাম্মদ উল্লাহ জানান, গোপন সূত্রে খবর পেয়ে চৌকিদার ও স্থানীয় সংবাদকর্মী রকিয়ত ও আবু বক্কর ছিদ্দিক এর সহযোগিতায় তাদেরকে আটক করতে সক্ষম হয়। এছাড়াও এসিএফ কর্মরত ৪ জন বাঙ্গালি কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় পাঠানো হয়েছে। আটক রোহিঙ্গাকে মাতারবাড়ী পুলিশ ক্যাম্পে হস্তান্তর করার প্রস্তুতি চলছে।

মহেশখালী ইউএনও মাহফুজুর রহমান বলেন, আটক ৯ রোহিঙ্গাকে পুলিশকে হ্যান্ডওভার করার জন্য মাতারবাড়ী চেয়ারম্যানকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে এর পিছনে কে বা কারা জড়িত সেই বিষয়ে খতিয়ে দেখা হবে বলে জানান তিনি।

বিডি প্রভাত/আরএইচ