মাগুরায় ইনসেপ্টার পক্ষ থেকে হাই ফ্লো ক্যানোলা মেশিন প্রদান

মাগুরায় ইনসেপ্টার পক্ষ থেকে হাই ফ্লো ক্যানোলা মেশিন প্রদান

মো. শাহাদত হোসাইন, মাগুরা: দেশের ভয়াবহ করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় শ্বাসকষ্টে থাকা রোগীদের অক্সিজেন সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট মাগুরা হাসপাতালকে মাগুরা-১ আসনের সংসদ সদস্য মো. সাইফুজ্জামান শিখরের উদ্যোগে ইনসেপ্টা ফার্মাসিউটিক্যালসের পক্ষ থেকে দুটি হাই-ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা মেশিন প্রদান হয়েছে।

শুক্রবার হাই-ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা মেশিন দুটি হাসপাতালের সিভিল সার্জন ডা. শহীদুল্লাহ দেওয়ান-এর কাছে হস্তান্তর করা হয়। হস্তান্তরের সময় আরও উপস্থিত ছিলেন আরএমও ডা. বিকাশ শিকদার, মেডিসিন বিভাগের প্রধান ড. মেহেদী হাসান, এনাটমী বিভাগের প্রধান ডা. সাইফ সহ অন্যান্যরা।

জানা যায়, করোনা রোগি বেড়ে যাওয়ার কারণে মাগুরা-১ আসনের সংসদ সদস্য মো. সাইফুজ্জামান শিখর রোগীদের চাহিদা মাথায় রেখে হাই-ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা মেশিন প্রদানের জন্য ইনসেপ্টা ফার্মাসিউটিক্যালসের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুল মুক্তাদিরকে অনুরোধ করেন। কিন্তু এই মুহূর্তে তিনি দেশের বাইরে অবস্থান করায় বিষয়টি দ্রুত উদ্যোগ নেন ইনসেপ্টার হেড অফ এডমিন জাহিদুল আলম।

বৃহস্পতিবার রাতেই তিনি ইনসেপ্টার নিজস্ব পরিবহনে হাই-ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা মেশিন এবং একজন টেকনিশিয়ান মাগুরাতে প্রেরণ করেন। এই ধারাবাহিকতায় শুক্রবার ইনসেপ্টার পক্ষ থেকে দুটি মেশিন হস্তান্তর ও স্থাপন করা হয়। এদিকে মাগুরা জেলা পরিষদের পক্ষ থেকেও একইভাবে আরও দুটি হাই-ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা মেশিন ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট মাগুরা হাসপাতালকে প্রদান করা হয়েছে। জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পঙ্কজ কুমার কুন্ডুর নির্দেশনায় এ-দুটি মেশিন হস্তান্তর ও স্থাপন করা হয়।

২৫০ শয্যা বিশিষ্ট মাগুরা হাসপাতালের নতুন চারটি হাই-ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা মেশিন যুক্ত হওয়ায় সংসদ সদস্য সাইফুজ্জামান শিখর, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পঙ্কজ কুমার কুন্ডু এবং ইনসেপ্টার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন সিভিল সার্জন ডা. শহীদুল্লাহ দেওয়ান।

তিনি বলেন, সাধারণ ন্যাজালের তুলনায় হাই-ফ্লো ন্যাজাল অনেক বেশি কার্যকরি। আক্রান্ত রোগীদের স্যাচুরেশন আপ করা এবং ফুসফুসকে সক্রিয় করতে এটি কার্যকর ভূমিকা পালন করে। প্রতিদিন করোনা আক্রান্ত নতুন রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। সে ক্ষেত্রে হাই-ফ্লো ন্যাজালের চাহিদাও বাড়বে। মাগুরা হাসপাতালে নতুন মেশিন যুক্ত হওয়ায় করোনা আক্রান্ত শ্বাসকষ্টে থাকা রোগীদের অক্সিজেন চাহিদা অনেকাংশেই পূরণ করা সম্ভব হবে।

বিডি প্রভাত/জেইচ