বিপর্যয়ের সময় গণমাধ্যমকে আড়াল করা অস্বাভাবিক : জিএম কাদের

ঘরে খাবার না থাকলে কেউ লকডাউন মানবে না: কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক: গণমাধ্যমে করোনা, আক্রান্তদের বিষয়ে তথ্য না দিতে ঢাকার সিভিল সার্জনের নির্দেশনা কেন দেওয়া হয়েছিলো- তা খতিয়ে দেখার আহ্বান জানিয়েছেন জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান জিএম কাদের এমপি।

তিনি বলেন, গণমাধ্যমে সঠিক তথ্য না পাওয়া গেলে অনিয়ম ও দুর্নীতি বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। পাশাপাশি গুজব ও ষড়যন্ত্রের ডালপালা বিস্তার লাভ করে। শনিবার (১০ জুলাই) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে জিএম কাদের এসব কথা বলেন।

জিএম কাদের বলেন, আমরা অবাক ও বিস্ময়ের সঙ্গে লক্ষ্য করছি ২৪ ঘণ্টা পার হলেও ঢাকার সিভিল সার্জনের জারি করা নির্দেশনা এখনো প্রত্যাহার করা হয়নি। অথচ মহামারি করোনাকালে জাতি সঠিক তথ্য জানতে গণমাধ্যমের দিকেই তাকিয়ে থাকে।

তিনি বলেন, গণমাধ্যমের প্রতিবেদন দেখেই প্রতিটি দুঃসময়ে সরকার, প্রশাসন, রাজনৈতিক দল, স্বেচ্ছাসেবক এবং সিভিল সোসাইটি এগিয়ে আসে। গণমাধ্যমে সঠিক তথ্য না পাওয়া গেলে অনিয়ম ও দুর্নীতি বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। পাশাপাশি গুজব ও ষড়যন্ত্রের ডালপালা বিস্তার লাভ করে।

প্রসঙ্গত, গত ৮ জুলাই দেওয়া চিঠিতে ঢাকা জেলার হাসপাতালগুলোর করোনা রোগীদের তথ্য গণমাধ্যমকে না দেওয়ার নির্দেশ দেন জেলার সিভিল সার্জন ডা. আবু হোসেন মো. মাঈনুল আহসান।

পরদিন শুক্রবার (৯ জুলাই) তার স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সিটি কর্পোরেশন এলাকা ছাড়া স্বাস্থ্য বিষয়ক যে কোনও তথ্যের জন্য সংবাদ মাধ্যমে সিভিল সার্জন এবং উপজেলা ক্ষেত্রে শুধুমাত্র উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করা হল।

বিডি প্রভাত/জেইচ