পটুয়াখালী চৌরাস্তায় বসতবাড়ীতে ৩ দফা হামলায় ৫ জন আহত

পটুয়াখালী চৌরাস্তায় বসতবাড়ীতে ৩ দফা হামলায় ৫ জন আহত

মু,হেলাল আহম্মেদ (রিপন) পটুয়াখালী প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালী জেলার শহরস্থ পৌরসভার ৯ নং ওয়ার্ডের বড় চৌরাস্তা মসজিদ সড়কে ধানের বীজ নষ্ট করাকে কেন্দ্র করে একদল সন্ত্রাসী বাহিনী সঙ্ঘবদ্ধ হয়ে বসত বাড়িতে হামলা ও ভাংচুর চালায় এতে নারী ও পুরুষ সহ ৫ জন আহত হওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

ঘটনাটি ঘটে গত ২৬ নভেম্বর দুপুর আনুমানিক ১২.৩০ মিনিটের সময় এতে নারী পুরুষ অনন্ত ৫ জন গুরুতর আহত হওয়ার খবর পাওয়া  যায়।

উক্ত ঘটনার হামলাকারীরা হলেন, একই এলাকার মো,রহমান মোল্লা (৫৫), তাওহিদ মোল্লা (২২), জাহিদ মোল্লা (৩২), উভয় পিতাঃ রহমান মোল্লা,সাং- বড় চৌরাস্তা, রহমান হাং (৪৫), মেহেদী (২৩), মাহিনুর (৩৫), স্বামীঃ মৃত হারুন-অর রশিদ, ফিরোজা (৪০), স্বামীঃ রহমান মোল্লা সহ অজ্ঞাত আরো ১০-১২ জন।

সুত্রে যানাযায়, আহতরা হলেন, ১. আবু বক্কর সিদ্দিকী(৩৩), ২.আলমগীর হোসেন (৫৫), ৩.মেহেদী হাসান (৩১), ৪. জাহানারা বেগম(৪৮), ৫. নাজমুল হোসেন (২১).সর্বসাং পটুয়াখালী সদর।

এবিষয় আহত আবু বক্কর সিদ্দিকী বিডি প্রভাত নিউজকে জানায়, রহমান মোল্লার নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী দেশীয় অস্ত্র রামদা, বাংলা দাও, হকিষ্টিক চাপাতি নিয়ে গত ২৬ নভেম্বর বেলা ১২.৩০ মিনিটের সময়  প্রথম হামলা চালায়। এতে আবু বক্কর সিদ্দিকী গুরুত্বর জখম হয় এবং তার ডান গালে ৭ টি সেলাই ও চোখে রক্তকাটা জখম ও দুটি দাত ভেঙে যায়। বর্তমানে তিনি ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট পটুয়াখালী সদর হাসপাতালে বি-৮ নং বেডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছেন।

এছাড়াও যানাযায়, বিকেল ৪.৩৯ মিনিটের সময় ফের জাহিদ মোল্লা (৩২), মোঃ আলমগীর হোসেনের মুঠোফোনে উক্ত সন্ত্রাসীরা প্রতিপক্ষকে প্রাননাশের হুমকি দেয়। পরে সন্ধ্যায় দ্বিতীয় বার পুনরায় সন্ত্রাসী রহমান মোল্লা বাহিনী বসবাড়িতে হামলা ও ভাংচুর চালায়।

এসময় পটুয়াখালী সদর থানায় অবহিত করলে পুলিশের উপস্থিতি টেরপেয়ে সন্ত্রাসীরা স্থান ত্যাগ করে।

সরেজমিন অনুসন্ধানে গেলে যানাযায়,  এহামলায় বসতঘর ভাংচুর চালিয়ে মোসাঃ জাহানারা বেগমের কানের দুল ছিনিয়ে নিয়ে যায় একটি স্যামসাং এন্ড্রয়েড ১-২০ মডেলর ফোন ভেঙে ফেলে এবং বাড়ীতে থাকা নারীদের পোশাক টেনে হিচরে ছিরে ফেলার মত জঘন্য অপরাধ ঘটায় সন্ত্রাসী মোল্লা বাহিনী।

উক্ত ঘটনার বরাত দিয়ে স্থানীয় জৈনিক ব্যক্তি নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জানায়, এরা ভুমিদস্যু ,সন্ত্রাস জঙ্গি জমি জবর দখল করাই এদের মুল পেশা।ভয়ে কেউ কিছু বলতে পারেনা এলাকার জনসাধারণ এদের কাছে জিম্মি। আলঙ্গীর হোসেন সহ একাধিক নারী পুরুষ এই সন্ত্রাসীদের হাতে মারধর খেয়েছে আমরা সাধারণ জনগণ এর উপযুক্ত সাস্তীর দাবী জানাই।

এব্যপারে পটুয়াখালী সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করা হলে, তৃতীয় দফায় ২৭ নভেম্বর সকাল আনুমানিক ৯-৩০ মিনিটের সময় মোঃ নাজমুল হোসেন (২১), কে নতুন বাসস্ট্যান্ডে পথরোধ করে ঐ সন্ত্রাসী বাহিনী ফের একটি এন্ড্রয়েড ফোন মডেল নং- রেডমি-৯-s ও সাথে থাকা টাকা পয়সা ছিনিয়ে নিয়ে তাকে মারধর করে ও গুরুতর আহত করে বিরদর্পে চলে যায়।

এসময় স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করলে পটুয়াখালী ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট সদর হাসপাতালে বি-১৩ নং বেডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভর্তি রয়েছেন।

এনিয়ে আলমগীর হোসেন বলেন, সন্ত্রাসীরা প্রভাবশালী ভুমিদস্যু ও দাঙ্গা প্রকৃতির লোকবটে। বর্তমানে আহতর পরিবার পরিজনদের নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় দিন জাপন করছেন। ও প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।এছাড়াও তিনি আরও বলেন, থানায় অভিযোগ দিয়েছেন মামলা করবেন বলে জানান।

এবিষয় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন সদর থানার এস,আই মাসুদ রানা, তিনি বলেন, এ বিষয়ে ২৬ নভেম্বর লিখিত একটি  অভিযোগ হয়েছে এবং ২৭ নভেম্বর ২০ ইং তারিখ পুনরায় নাজমুল নামের একজনকে মারধরের খবর জানানো হলে পুনরায় ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

এব্যাপারে পটুয়াখালী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অফিসার ইনচার্জ মোঃ আখতার মোর্সেদ এর কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন, অভিযোগ পেয়েছি ঘটনাস্থলে এস আই পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে প্রয়োজনিয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান।

বিডি প্রভাত/আরএইচ