পটুয়াখালীতে প্রথম বারের মত জোড়া লাগানো শিশু বাচ্চার জন্ম, নেই মলদ্বাার

পটুয়াখালীতে প্রথম বারের মত জোড়া লাগানো শিশু বাচ্চার জন্ম, নেই মলদ্বাার

মু,হেলাল আহম্মেদ (রিপন) পটুয়াখালী প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালী সরকারি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে এই প্রথম বারের মত জোড়া লাগানো শিশু বাচ্চার জন্ম হয়েছে। বর্তমানে শিশু দুটি সদর হাসপাতালের স্পেশাল নবজাতক পরিচর্যা কেন্দ্রে (স্কানু) এবং শিশুর মা গাইনি ওয়ার্ডে ডাক্তারের চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে।

গত ২৮শে  ফেব্রুয়ারি রবিবার দুপুরের দিকে পটুয়াখালী সরকারি  মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে এই শিশু বাচ্চার জন্ম হয়।

জানাযায়, সদর উপজেলার লোহালিয়া ইউনিয়নের স্থানীয় বাসিন্দা বশির শিকদার (২৫) ও রেখা দম্পতির কোল জুড়ে প্রথম সন্তান এটি। তারা বর্তমানে হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. মোস্তাফিজুর রহমানের তত্ত্বাবধায়নে আছে।

তিনি এসময় বলেন, শিশু দুইটির হাত, পা ও হৃদপিণ্ড আলাদা। তবে তাদের প্রস্রাব ও পায়খানার রাস্তা নেই। স্বাভাবিকভাবেই তারা অক্সিজেন গ্রহণ করছেন বলে জানান। 

কিন্তু দেখাযাচ্ছে যতক্ষণ পর্যন্ত এই জোড়া বাচ্চার মলদ্বারের রাস্তা না হয় ততক্ষণ তাদের খাবার জাতীয় কোনো কিছু দেওয়া যাবে না বলে জানালেন। 

এদিকে পটুয়াখালীতে শিশু সার্জন না থাকায় তাদের জন্য এখানে কিছু করা সম্ভব নয়, তাই আমরা তাদের বরিশাল শেরে বাংলা মেডিক্যাল কলেজে হাসপাতালে রেফার করেছি। পটুয়াখালীতে এরকম ঘটনা এটিই প্রথম বলে জানান তিনি।

জোড়া শিশুদের স্পেশাল নবজাতক পরিচর্যা কেন্দ্রে (স্কানু) মেডিক্যাল অফিসার ডা. রাণী জামান সার্বক্ষণিক শিশুদের দেখাশুনা করছেন। তার সঙ্গে দুজন সেবিকা দেখাশুনায় রয়েছে।

শিশুর বাবা বশির সিকদার বলেন, এটিই আমাদের প্রথম বাচ্চা, বিয়ের এক বছর পরে এ বাচ্চার জন্ম হলো। অপারেশনের পর জানতে পারলাম, জোড়া লাগানো শিশু। কি আর করবো, আল্লাহর ইচ্ছা, ডাক্তার স্যারেরা যা বলবেন, তাই করবো, যতটুকু সম্ভব।

তিনি আরও বলেন, কিছুদিন আগে রেখা অসুস্থ হলে আমরা ডাক্তার দেখাই, ডাক্তার আলট্রাসনোগ্রাফি করে আমাদের কিছু বলেননি। বরিশাল পাঠিয়েছিলো। আমরা বাড়ি ফিরে আসি, কিছুদিন পর রেখা আবার অসুস্থ হয়ে পরে। তারপর সদর হাসপাতালে ভর্তি করি, আজ অপারেশনের মাধ্যমে জোড়া লাগানো শিশুর জন্ম হলো বলে জানালেন।

বিডি প্রভাত/আরএইচ