নরসিংদীতে করোনাকালীন সময়ে শ্রমিকবান্ধব মালিক হিসেবে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন

নরসিংদীতে করোনাকালীন সময়ে শ্রমিকবান্ধব মালিক হিসেবে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন

বিশ্বনাথ পাল, নরসিংদী প্রতিনিধি: নরসিংদী ২০২০ সালের একজন সুনামধন্য আলোকিত প্রিয় স্বজন, প্রিয় মুখ, বিশিষ্ট শিল্পপতি ও সমাজসেবক গোপনীয়তা রক্ষা করে যিনি মেহনতি মানুষদের দান করে ইতিমধ্যে ব্যাপক খ্যাতি অর্জন করেছেন তিনি হলেন মাধবদীর আলহাজ্ব মো: জাকির হোসেন ভূইয়া, তিনি মেসার্স মোক্তাদিন ডাইং প্রিন্টিং এন্ড ফিনিশিং মিলস ও আব্দুল মোহাইমিন ট্রেডিং এর সম্মানিত চেয়ারম্যান।

করোনাকালীন সময়েও তিনি তাঁর প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা কর্মচারী ও শ্রমিকদের বেতন ভাতা মজুরি দিয়ে শ্রমিকবান্ধব মালিক হিসেবে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

তিনি বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি নরসিংদী ইউনিটের কার্যকরী সদস্য, মাধবদী থানা কমিউনিটি পুলিশের সভাপতি, মাধবদীর ঐতিহ্যবাহী অরাজনৈতিক সামাজিক সংগঠন সুখায়ু’র সভাপতি ও মাধবদী জনকল্যাণ সংস্থার সভাপতি। তিনি প্রতিনিয়ত নিজস্ব অর্থায়নে দরিদ্রদের মাঝে নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করছেন।কর্মহীনদের কর্মসংস্থান করে দিয়েছেন।গৃহহীনকে ঘর নির্মাণ করে দিয়েছেন। কিছু মানুষকে রিক্সা প্রদান করেছেন। করোনার প্রভাবে মসজিদ মাদ্রাসা গুলো  আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় তিনি সাহায্যের হাত সম্প্রসারিত করেন  জেলার অসংখ্য মসজিদ মাদ্রাসায়।

তিনি একজন খাটি মুসলিম হিসেবে নিজগ্রাম দক্ষিণ ভগীরথপুর মদিনাতুল উলুম হাফিজিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানা এবং মসজিদ  কমিটির সভাপতি।মাদ্রাসা ও   পরিচালনায় অর্থসংকট দূরীকরণের লক্ষ্যে ব্যাক্তি গত অর্থে ৬ শতাংশ জমি খরিদ করে উক্ত জমিতে ১ কোটি ৮০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ৬ তলা ফ্ল্যাট নির্মাণ করে দিয়েছেন। ব্যয়বহুল ৫ তলা অত্যাধুনিক দৃষ্টি নন্দন মিনার সমন্বিত ভগিরথপুর দক্ষিণ পাড়া বায়তুল রহমান জামে মসজিদ নির্মান  কাজ দ্রুত এগিয়ে চলেছে। তিনি স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়নের জন্য ভগিরথপুর ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রের জন্য ২০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ১০ শতাংশ ভূমি ক্রয় করে দেন এবং ব্যবসায়ীদের প্রাণের সংগঠন নরসিংদী চেম্বার অব কমার্স এন্ড  ইন্ডাস্ট্রিকে ১ শতাংশ জমির জন্য ১০ লক্ষ টাকা অনুদান দেন। কিছুদিন আগেও তিনি একটি মহৎ কাজের উদ্দেশ্যে ৪৫ শতাংশ জমির বায়না করেছেন।

আলহাজ্ব জাকির হোসেন ভূঞা একজন প্রচার বিমুখ মানুষ। ধনী গরীব সবাইকে তিনি সমান গুরুত্ব দিয়ে থাকেন। তাঁর কাজই হলো অসহায় দু:খী মানুষের পাশে দাঁড়ানো। তিনি গোপনে দান করতে পছন্দ করেন। তিনি সামাজিক সংগঠন সুখায়ুর মাধ্যমে এলাকার গরিব অসহায়দেরকে কে চিকিৎসা, বিয়ে  ঘর নির্মাণ ও রিক্সা অনুমান হিসেবে দিয়ে যাচ্ছেন। তিনি বলেন, আল্লাহ  আমাকে সামর্থ্য দিয়েছেন।আমি একমাত্র মহান আল্লাহ পাকের সন্তষ্টির জন্য আল্লাহর রাস্তায় দান করি। আমার দানের ৯০ ভাগই গোপনে করি। সামাজিক সংগঠনের মাধ্যমে ১০ ভাগ দান প্রকাশ্যে করি মানুষকে উৎসাহিত করার জন্য।

তিনি আরও বলেন, যে সংগঠন করতে টাকা আসবে সে সংগঠন আমি করি না। যে সংগঠনে গেলে আমি টাকা খরচ করতে পারবো সেই সংগঠন করি। সকল অনুষ্ঠানে নির্ধারিত সময়ে তাঁর সরব উপস্থিতির কারণে বছর জুড়ে তিনি সেরা আলোচিত ব্যক্তি।

বিডি প্রভাত/আরএইচ

Spread the love