জাবিতে হল ছাড়তে প্রশাসনের নির্দেশ, উপেক্ষা করলেন শিক্ষার্থীরা

জাবিতে হল ছাড়তে প্রশাসনের নির্দেশ, উপেক্ষা করলেন শিক্ষার্থীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক: জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) আবাসিক হলের তালা ভেঙে ভেতরে অবস্থানরত ছাত্ররা আজ সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টার মধ্যে হল ত্যাগ না করলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করার ঘোষণা দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টায় হল ছাড়ার নির্দেশের সময় শেষ হওয়ার পরেও শিক্ষার্থীরা হল ছাড়েননি। পরে বেলা সাড়ে ১১টায় হলে হলে গিয়ে শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার অনুরোধ জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট হল প্রশাসন। তবে হল প্রশাসনের এমন সিদ্ধান্তকে উপেক্ষা করে হলে অবস্থান করার ঘোষণা দিয়েছেন বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাধ্যক্ষ কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মোতাহার হোসেন বলেন, শিক্ষার্থীদের হলে অবস্থানের বিষয়টি নিয়ে আমরা একটি বৈঠক করছি। বৈঠক শেষে আমরা প্রতিটি হলে গিয়ে শিক্ষার্থীদের চলে যেতে বলেছি। তারা আমাদের প্রস্তাব মানেনি। তাই পরবর্তীতে আলোচনা সাপেক্ষে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নগর অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগের শিক্ষার্থী সোলাইমান কবির বলেন, গতপরশু হামলার ঘটনার পর স্থানীয় এলাকায় আমাদের নিরাপত্তা নেই। স্থানীয় বাসা মালিকরা আমাদেরকে বাসা ছেড়ে দেওয়ার নির্দেশ দিচ্ছেন। এই অবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের এমন নির্দেশ আমাদেরকে হতাশ করছে। একটা স্বায়ত্তশাসিত বিশ্ববিদ্যালয়ে সরকারি সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় থাকাটা মানায় না বরং তাদের উচিত ছিল শিক্ষার্থীদের কথা ভাবা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের আ ফ ম কামালউদ্দিন হলের প্রাধ্যক্ষ ও ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর আ স ম ফিরোজ উল হাসান বলেন, আমরা শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগের জন্য অনুরোধ করেছি। তারা হল ছাড়তে রাজি হয়নি। এখন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন শিক্ষার্থীদের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে।

রবিবার (২১ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাত ১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার রহিমা কানিজ স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত শনিবার কিছু সংখ্যক ছাত্ররা সরকারি নির্দেশ অমান্য করে বিভিন্ন হলের তালা ভেঙে জোরপূর্বক অবস্থান নিয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তাদেরকে সোমবার সকাল ১০টার মধ্যে নিজ উদ্যোগে হল ত্যাগের নির্দেশ দিচ্ছে। অন্যথায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

অন্যদিকে, গত শনিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা তালা ভেঙে হলে ঢুকলেও ছাত্রীরা ঢুকতে পারেনি। ফলে সোমবার বেলা ১২টার মধ্যে হল না খুললে তালা ভেঙে ভেতরে প্রবেশের হুমকি দিয়েছে ছাত্রীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সামিয়া হাসান নামে এক ছাত্রী বলেন, সোমবার বেলা ১২টার মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন হল খুলে না দিলে আমরা ছাত্রীদের নিয়ে তালা ভেঙে হলে প্রবেশ করবো।

এছাড়া বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা পাল্টা কর্মসূচির ঘোষণা দিয়েছে। এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে শিক্ষার্থীরা জানিয়েছে, আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আবাসিক হলে শিক্ষার্থীদের থাকার সুব্যবস্থা এবং গেরুয়া গ্যাংয়ের বিচার না করতে পারলে বিশ্ববিদ্যালয়ের সমস্ত অফিস, কোয়ার্টার, প্রক্টর ও ভিসিসহ সবার বাসায় তালা মেরে দেওয়া হবে।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে গেরুয়ার স্থানীয় লোকজনের সংঘর্ষের জেরে গত শনিবার উপাচার্যের বাসভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে তিন দফা দাবি পেশ করেন শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন শিক্ষার্থীদের দুটি দাবি মেনে নিলেও রাষ্ট্রীয় বিধিনিষেধ থাকায় শিক্ষার্থীদের হলে ওঠার দাবি মেনে নেয়নি। পরে ছাত্ররা হলের তালা ভেঙে স্ব স্ব হলে অবস্থান নেন।

বিডি প্রভাত/জেইচ