কুড়িগ্রামে স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁশের সাঁকো তৈরি করেছে শিক্ষার্থীরা

কুড়িগ্রাম জেলা প্রতিনিধিঃ কুড়িগ্রামের রাজিবপুরে সম্প্রতি বন্যায় উপজেলা শহরের সাথে যোগাযোগের সড়কটি ভেঙে যায়।এতে চলাচলের দূর্ভোগ পোহায় উপজেলার মোহনগঞ্জ ইউনিয়নের জোয়ানেরচর সহ কয়েকটি গ্রামের হাজারো মানুষ।

স্থানীয়রা ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার ও চেয়ারম্যানকে অবহিত করলেও তারা কার্যকর কোন উদ্যোগ গ্রহণ করে নি। তাই এলাকাবাসী ও নিজেদের দূর্ভোগ লাঘবে স্থানীয় তরুণরা মোহনগঞ্জ ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের জোয়ানেরচর গ্রামে স্বেচ্ছায় তৈরি করছে বাঁশের সাঁকো।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা শহরের যোগাযোগের গুরুত্বপূর্ণ এই সড়কটি দিয়ে  জোয়ানেরচর, পাটাধোয়াপাড়া,সহ আরও কয়েকটি গ্রামের মানুষজন চলাচল করে।এছাড়াও রাজীবপুর মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়,রাজীবপুর সরকারী ডিগ্রি কলেজ এর শিক্ষার্থীরা এই পথে স্কুল কলেজে যাতায়াত করে।সম্প্রতি স্কুল কলেজ চালু হওয়ায় শিক্ষার্থীরা বিপাকে পড়েছিল ওই ভাঙ্গা সড়কে চলাচলের সময়।

এলাকাবাসী ও শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি দেখে  জোয়ানের চর গ্রামের কলেজ শিক্ষার্থী সোহেল রানা(২২) সড়কের ওই ভাঙ্গা অংশে সাঁকো নির্মানের চিন্তা করে স্থানীয় আরও কয়েকজন শিক্ষার্থীর সাথে কথা বলে।তার প্রস্তাবে সাড়া দেয় রাসেল(১৮), আব্দুল মান্নান(২০),ইউসুফ (১৫) সহ আরও কয়েকজন।পরে প্রায় ৩০ জনের অক্লান্ত প্রচেষ্টায় নির্মান হয় ১৫ ফুট বাঁশের সাঁকো।

সাঁকো নির্মানের মূল উদ্যোক্তা সোহেল রানা বলেন, মানুষের চলাচলের দূর্ভোগ লাঘবে আমরা তরুণরা এই উদ্যোগ গ্রহণ করি।এতে গ্রামের অনেকেই সহযোগিতা করেছেন। স্থানীয় প্রশাসনের কাছে দ্রুত সড়কের ওই ভাঙ্গা অংশ মেরামত করার দাবিও জানিয়েছেন তিনি। 

মোহনগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন জানান, ওখানকার স্থানীয় কিছু ছাত্র ও এলাকাবাসী মিলে একটি অস্থায়ী সাঁকো নির্মান করেছে। এতে চলাচলে সাময়িক  সুবিধা হয়েছে। সড়কটির ক্ষতিগ্রস্থ অংশ মেরামতের জন্য উপজেলা প্রশাসনের নিকট আবেদন জানানো হয়েছে।

বিডি প্রভাত/আরএইচ