অস্থির এলপি গ্যাসের বাজার, কেজিতে ১৭ টাকা ও সিলিন্ডারে ২৫০ টাকা বাড়লো

অস্থির এলপি গ্যাসের বাজার, কেজিতে ১৭ টাকা ও সিলিন্ডারে ২৫০ টাকা বাড়লো

নিজস্ব প্রতিবেদক: গত দুই মাসে খুচরা বাজারে ৩ দফায় দাম বেড়েছে এলপি গ্যাসের। এতে বিপাকে পড়েছে এলপিজির গ্রাহকরা। প্রতি কেজিতে বেড়েছে প্রায় ১৭ টাকা।

আন্তর্জাতিক বাজারে মূল্য বৃদ্ধির কথা বলে বেসরকারি কোম্পানিগুলো দেশীয় বাজারে কয়েক গুণ বেশি দাম বাড়িয়েছে। গত ছয় মাসে আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতি টনে ৩৫০ ডলার দাম বেড়েছে বলে দাবি করছে আমদানিকারকরা।

তবে বিপিজি সূত্র জানায়, আন্তর্জাতিক বাজারে জানুয়ারি মাস থেকে ফেব্রুয়ারিতে প্রতি টনে ৫৫ ডলার দাম বেড়েছে। শুধু এলপি গ্যাসই নয়, সিলিন্ডারের দামও বেড়েছে। ৫০০ টাকার খালি সিলিন্ডার ৭৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

আমদানিকারকরা জানান, আন্তর্জাতিক বাজারে অস্বাভাবিক ভাবে এলপিজির দাম বেড়ে গেছে। গত কয়েক মাস যাবত্ আন্তর্জাতিক বাজারে ঊর্ধ্বমুখী ট্রেন্ড অব্যাহত রয়েছে। এতে আমদানিও কিছুটা কম হচ্ছে। জানা যায়, মধ্যপ্রাচ্যের কয়েকটি দেশে এলপিজি উত্পাদন হয়। মধ্যপ্রাচ্য থেকে এলপিজি থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া ও সিঙ্গাপুরে আনা হয়। পরে এসব দেশ থেকে প্রক্রিয়াজাতকরণের মাধ্যমে বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা এনে থাকেন।

করোনা ভাইরাস শুরু হওয়ার পর থেকে মধ্যপ্রাচ্যে এলপিজির বাজারে চরম মন্দা শুরু হয়। রপ্তানি কমে যায়। এতে উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো ব্যাপক লোকসানের মুখে পড়ে। মন্দার কারণে অনেকেই প্ল্যান্ট বন্ধ করে দিয়েছে। বর্তমানে করোনা পরিস্থিতি কিছুটা উন্নতি হলেও লোকসানের কারণে অনেক কোম্পানি বন্ধ হয়ে যাওয়া প্ল্যান্ট চালু করতে পারেনি। ফলে বিভিন্ন দেশে এলপিজির চাহিদা বাড়লেও উত্পাদন তুলনামূলক ভাবে বাড়েনি। তাই আমদানি ও খুচরা বাজারে এলপিজির দাম বেড়ে গেছে।

দেশে গ্যাসের আবাসিক সংযোগ বন্ধ থাকায় এলপি গ্যাসের চাহিদা প্রতিদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। আবাসিকে এলপিজি ব্যবহার বৃদ্ধি পাওয়ায় বাজারে চাহিদাও কয়েক গুণ বেড়েছে। শহর ছাড়াও গ্রামে ব্যাপক হারে এলপিজি ব্যবহার হচ্ছে।

বিডি প্রভাত/জেইচ