অনিশ্চয়তা নিয়েই বাড়িমুখী পোশাক শ্রমিকরা

অনিশ্চয়তা নিয়েই বাড়িমুখী পোশাক শ্রমিকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঈদের ছুটির আগেই ইতোমধ্যে তৈরি পোশাক কারখানাগুলো প্রায় শতভাগ বেতন-বোনাস পরিশোধ করেই শ্রমিকদের ছুটি দিয়েছে। যদিও শ্রমিক নেতারা বেতন-বোনাস নিয়ে দ্বিমত পোষণ করেছেন।

এদিকে অনেক কারখানা ২৫ থেকে ২৭ জুলাই পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করেছে। ঈদের পর ২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত কঠোর লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার। ঈদের ছুটি পেলেও অনিশ্চয়তা নিয়েই বাড়ি ফিরতে শুরু করেছেন শ্রমিকরা।

পোশাক কারখানায় ছুটি ১৮ জুলাই, আগেই হবে বেতন-বোনাস

তারা জানেন না, ছুটি শেষে যদি লকডাউনে যানবাহন বন্ধ থাকে তবে কীভাবে কারখানায় ফিরবেন। মালিক পক্ষ বলছে, শ্রমিকরা কীভাবে কাজে ফিরবেন এর দায় সরকারকে নিতে হবে। তারা শ্রম আইন মতেই ছুটি নিশ্চিত করেছেন।

বিজিএমইএ বলছে, চলমান কারখানাগুলোর মধ্যে স্টাইল ক্র্যাফট ছাড়া সব কারখানায় বেতন-বোনাস পরিশোধ সম্পন্ন হয়েছে। ওই কারখানাটির শ্রমিকরা যাতে বেতন পান এ নিয়ে কাজ চলমান। বিকেএমইএ বলছে, তাদের সদস্যভুক্ত শতভাগ কারখানা মালিক শ্রমিকদের বেতন-বোনাস পরিশোধ করেই ছুটি দিয়েছে।

তিন খাত ছাড়া বিধিনিষেধে বন্ধই থাকছে গার্মেন্টসসহ শিল্প-কারখানা

এদিকে শিল্প পুলিশের একটি তথ্য বলছে, সারাদেশে মোট ৭ হাজার ৮২৪টি বিভিন্ন কারখানার মধ্যে জুন মাসের বেতন পরিশোধ করেছে ৯০ থেকে ৯৫ শতাংশ কারখানা। বোনাস পরিশোধ করেছে ৫৫ শতাংশ কারখানা

হিসাব বলছে, এখনো ৪৫ শতাংশ কারখানা বোনাস দেয়নি আর ৫ শতাংশ কারখানায় বেতন হয়নি।

ঈদের পর ২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত লকডাউনে খাদ্যপণ্যের মিল-কারখানা, পশুর চামড়া ও ওষুধ উৎপাদনকারী শিল্পপ্রতিষ্ঠান ছাড়া বাকি কারখানা ও গণপরিবহন বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে সরকার

মোবাইলে বেতন-বোনাস পেয়েছেন ১৯ লাখ পোশাক শ্রমিক - RMG Bangladesh

এ সময় তাহলে কীভাবে পোশাক কারখানা চলবে এমন প্রশ্নের উত্তরে বিকেএমইএর সহ-সভাপতি ফজলে শামীম এহসান বলেন, এখন প্রচুর কাজের অর্ডার আছে কারখানায়। সময় মতো পণ্য ডেলিভারি না হলে বায়ার চলে যাবে। তাছাড়া কারখানা খোলা থাকলে শ্রমিক নিরাপদে থাকেন। বাইরে থাকলে সংক্রমণের শঙ্কা থাকে।

বিডি প্রভাত/জেইচ